সংবাদ ডেস্ক :

তদন্তের ফলাফল প্রকাশ না করে স্নাতকের ফলাফল প্রকাশ করেছে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগ। শিক্ষার্থীদের ফলাফল পুনরায় মূল্যায়ন ও নতুন ফলের দাবিতে ও আন্দোলনের প্রেক্ষিতে তদন্তের আশ্বাস দিলেও কোনো ধরনের তদন্ত না করেই স্নাতকের ফলাফল প্রকাশ করেছে বিভাগটি। এনিয়ে নানামুখী অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন বিভাগের বিভিন্ন সেশনের শিক্ষার্থীরা।

জানা যায়, সমাজবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থীদের ফলাফল বিপর্যয় হওয়ায় পুনরায় মূল্যায়নের দাবিতে গত ১৫ ও ১৬ মার্চ টানা দুই দিন অবস্থান কর্মসূচি ও ক্লাস বর্জন করেন বিভাগের শিক্ষার্থীরা। এসময় ১৮০ জন শিক্ষার্থী স্বাক্ষরিত স্মারকলিপির মাধ্যমে বিভাগীয় প্রধানের নিকট তিন দফা দাবি জানানো হয়। শিক্ষার্থীদের দাবিসমূহ ছিলো- সমাজবিজ্ঞান বিভাগের সার্বিক ফলাফল কেন খারাপ বিষয়টি তদন্ত করা, বিভিন্ন সেমিস্টারের প্রকাশিত ফলাফলের পুনর্মূল্যায়ন ও নতুনরূপে ফলাফল প্রকাশ করা এবং সমাজবিজ্ঞান সমিতি কার্যকর করা।

শিক্ষার্থীদের আন্দোলন ও দাবির প্রেক্ষিতে গত ১৬ মার্চ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদের উপস্থিতিতে এক জরুরি সভার মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের দাবিসমূহ মেনে নেওয়ার আশ্বাস দিয়েছিলেন বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ড. লায়লা আশরাফুন। তবে তদন্ত কমিটি গঠনের প্রায় পাঁচ মাস সময় পার হয়ে গেলেও এখনো অফিসিয়ালি চিঠি না পাওয়ায় তদন্তের কাজ শুরু করতে পারেননি কমিটির প্রধান অধ্যাপক ড. ফয়সল আহমেদ। এদিকে গত ১০ আগস্ট কোনো ধরনের তদন্ত ছাড়াই স্নাতকের ফলাফল প্রকাশ করেছে বিভাগটি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিভাগের ২০১৬-১৭ সেশনের এক শিক্ষার্থী বলেন, এর মাধ্যমে ‘তদন্ত ছাড়া ফলাফল প্রকাশ’ একটা বৈধতা পেল যা অন্যান্য সেশনের শিক্ষার্থীদের উপরও প্রয়োগ হতে পারে। তবে আমরা এ দাবি থেকে কোন ক্রমেই পিছু হটবো না।

এ বিষয়ে বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ড. লায়লা আশরাফুন বলেন, স্নাতকের ফলাফল প্রকাশ করার জন্য সদ্য স্নাতক পাস শিক্ষার্থীরাই আমার নিকট আবেদন করেছে। সেখানে তদন্ত করে ফলাফল প্রকাশ করার কথা সম্পর্কে কিছু বলেনি তারা। তাই আমি বিভাগের প্রধান হিসেবে একটা ফলাফল উপস্থাপন করেছি।

ভবিষ্যতে তদন্তের রিপোর্ট প্রকাশের পরে পুনরায় ফলাফল প্রকাশ করা হবে কি না এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, তদন্ত কমিটি যা চাইবে তাই হবে।

তবে তদন্ত কমিটি কবে কাজ শুরু করবে এ বিষয়ে জানে না কেউ। সার্বিক ব্যাপারে উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ বলেন, এ ব্যাপারে আপাতত কোন মন্তব্য করতে রাজি নই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here