সংবাদ ডেস্ক :

জগন্নাথপুর উপজেলার বিভিন্ন হাওরে স্বেচ্ছাশ্রমে ধান কাটছে বিভিন্ন রাজনৈতিক সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতাকর্মী জনপ্রতিনিধি শিক্ষক, শিক্ষার্থী, আনসার সদস্যসহ সেচ্ছাসেবী প্রায় ১০ হাজার যুবক ও তরুণ। আজ জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শওকত ওসমান মজুমদার বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, জগন্নাথপুর উপজেলার ছোটবড় ১৫ টি হাওরে এবার ২০ হাজার ৫০০ হেক্টর জমিতে বোরো আবাদ করা হয়েছে। হাওরজুড়ে পাকাধান থাকার পরও এবার করোনাভাইরাস সংক্রমনে অন্য জেলা থেকে তুলনামূলক কম শ্রমিক আসায় অকাল বন্যার আশঙ্কায় কৃষি বিভাগের আহ্বানে ধান কাটতে স্বেচ্ছাসেবীরা মাঠে নামেন।

উপজেলা কৃষি কার্যালয় সূত্র জানায়, দেশের অন্য জেলা থেকে এবার এখন পর্যন্ত কৃষি শ্রমিক এসেছেন ১৮৫৫ জন। স্হানীয় কৃষি শ্রমিক রয়েছেন ১৪৫০ জন ও বিভিন্ন সংগঠনের স্বেচ্ছাসেবী রয়েছেন ৯৯৮৩ জন।

জগন্নাথপুর উপজেলার মীরপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাহবুবুল হক শেরিন জানান, ইউনিয়নের ৯টি ওয়ার্ডে আজ একযোগে সকাল সাতটা থেকে চারশ তরুণ স্বেচ্ছাসেবক ইউনিয়নের বিভিন্ন হাওরে অসহায় শ্রমিক সংকটে পড়া কৃষকদের ধান কেটে দিয়েছে। আমি স্বেচ্ছাসেবীদের উদ্ধুদ্ধ করে ধানকাটার কার্যক্রম তদারকি করছি।

জগন্নাথপুর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কার্যালয়ের একাডেমিক সুপারভাইজার অরুপ রায় জানান, জগন্নাথপুরের হাওরগুলোতে ধান কাটতে উপজেলার প্রতিটি স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসার শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে প্রতিষ্ঠান প্রধানকে আমরা দায়িত্ব দিয়েছিলাম। যে কারণে প্রতিটি প্রতিষ্ঠানের প্রধানসহ উল্লেখযোগ্য সংখ্যক শিক্ষার্থীরা ধান কাটতে মাঠে নামেন।

জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম বলেন, উপজেলার বিভিন্ন হাওরে আওয়ামী লীগ অঙ্গসহযোগী সংগঠনের হাজারো নেতাকর্মী ধান কাটতে হাওরে রয়েছেন।

জগন্নাথপুর উপজেলা উদীচী শিল্পী গোষ্ঠীর সাধারণ সম্পাদক দ্বীপক কান্তি দে জানান, উদীচীসহ বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠনের ৫০০ কর্মী ধান কাটছে।

জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইউএনও মাহফুজুল আলম মাসুম বলেন, ইউএনও জগন্নাথপুর এর ফেসবুক পেজে ধান কাটার আহ্বান জানিয়ে একটি পোস্ট দেওয়ার পর থেকে এ উপজেলার বিভিন্ন শ্রেণী পেশার নানা বয়সী মানুষ স্বতঃস্ফূর্তভাবে সাড়া দিয়ে ধান কাটতে নামেন। তরুণরা উৎসাহ উদ্দীপনায় কৃষকদের পাকাধান কেটে দিয়ে মহতি কাজ করছেন। প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাদেরকে ধন্যবাদ জানাই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here