তানভীর আহমেদ রুবেল:
অনলাইনে ডুকলেই শুধু এখানে লকডাউন তো সারাদেশে মৃত্যু সংবাদ আর আক্রান্ত নিয়ে প্রতিনিদিনেই আমরা আতংকিত। তারি সাথে লকডাউন বাস যেনো রীতিমতো হাজত বাসে পরিণত হয়েছে। আর কতো এভাবে বসে থাকায় যায়….
এমনি পরিস্থিতিতে বাংলা খবর পরিবারের সাথে এক লকডাউন এলাকার বাসিন্দা তুহিন আহমদ জানান, বিগত দিন সকালে বের হলে কিভাবে যে সারাটা দিন কেটে যেতো বুঝতেই পারতাম না। কিন্তু সারা বিশ্বের মতো আমাদের দেশে যেভাবে ক্রমে ক্রমে আক্রান্তের হচ্ছে তাতে ঘর থেকে বের হতে সাহস পাচ্ছি না। প্রতিদিন ঘুম থেকে উঠে যখন মুঠো ফোনটি খুলি তখনি বিভিন্ন অলাইনে ব্রেকিং নিউজ দেখে আতংকের মাত্রাটা যে বাড়তে থাকে। গত ২ সাপ্তাহ হলো আমি ঘর থেকে বের হয়নি এখন নিজেকে বন্দি খাচার পাখির মতো মনে হচ্ছে।
আম্বরখানা মণিপুরী পাড়ার বাসিন্দা সুজিত সিংহ বলেন, আমার কাছে এখন দিন রাত একই মনে হচ্ছে। সারা দিন ঘরে বসে বসে মাথাটা যেনো আর কাজ করছে না। মাঝে মাঝে মনে হচ্ছে আমি কি বেচে আছি। আর বেচে থাকলেও এ কেমন বেচে থাকা….
নগরী হাউজিং এস্টেটের বাসিন্দা সুমন আহমদ জানান, সারাদিন কর্মব্যস্ততার মাঝে কখনো বুঝতেই পারিনি যে কর্মহীন বেচে থাকার কষ্ট। তিনি বলেন, কবে যে এই করোনা নামক অভিশাপটি সারাবিশ্ব থেকে দূর হবে। আবার কবে যে আমরা আমাদের স্বরূপে ফিরতে পারবো সেটাই এখন দেখার বিষয়….

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here