হবিগঞ্জ সংবাদদাতা :

দেশের ৪৯২তম এবং সর্বশেষ প্রতিষ্ঠা পাওয়া উপজেলা শায়েস্তাগঞ্জ। তবে ওলিপুর শিল্প এলাকাকে ঘিরে গাজীপুরের পরেই এর গুরুত্ব বিবেচনা করা হয় স্থানীয়ভাবে। হবিগঞ্জে অন্য ৮টি উপজেলা পরিষদের নির্বাচন সম্পন্ন হলেও বাকি ছিল শায়েস্তাগঞ্জ।

কে হচ্ছেন দেশের সর্বশেষ উপজেলা পরিষদের প্রথম চেয়ারম্যান, এ নিয়ে আলোচনা-সমালোচনার শেষ ছিল না। সকল জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে অবশেষে আগামী ১৮ জুন পঞ্চম ধাপে অনুষ্ঠিত হচ্ছে এ উপজেলার নির্বাচন।প্রথমবার নির্বাচিত চেয়ারম্যানের কর্মকাণ্ডের উপরই নির্ভর করবে নতুন এ উপজেলার উন্নয়ন আর অগ্রগতি। এমনটাই মনে করছেন সাধারণ ভোটার এবং স্থানীয় সচেতন মহল। সব দিক থেকেই যোগ্য প্রার্থী দেখে চেয়ারম্যান নির্বাচিত করতে চান তারা।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন হবিগঞ্জ সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদ সদস্য আব্দুর রশিদ তালুকদার ইকবাল, জেলা বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক এবং নূরপুর ইউনিয়ন পরিষদে টানা ৭ বার নির্বাচিত সাবেক চেয়ারম্যান গোলাম কিবরিয়া চৌধুরী বেলাল এবং হবিগঞ্জ সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আলী আহমদ খান।

তামান্না চৌধুরী নামে এক ভোটার বলেন, প্রথমবার আমাদের উপজেলা পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। এমন একজন প্রার্থীকে নির্বাচিত করতে চাই যেন প্রথম চেয়ারম্যানের অনুকরণেই যাতে পরবর্তী চেয়ারম্যানরা কাজ করেন।

শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার জহুর চান বিবি মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ জালাল উদ্দিন রুমী বলেন, শায়েস্তাঞ্জ উপজেলাটি সর্বকনিষ্ট হলেও দেশের মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ উপজেলা এটি। কারণ এখানে গড়ে উঠেছে শিল্পাঞ্চল। প্রয়োজন  রয়েছে ভালো যোগাযোগ ব্যবস্থার। এ উপজেলায় সরকার ঘনিষ্ট এবং পজিটিভ একজন প্রার্থীকে নির্বাচিত করা প্রয়োজন। যে শিক্ষাকে প্রাধান্য দিয়ে এলাকার উন্নয়ন তরান্বিত করবে।

আওয়ামী লীগ মনোনিত চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুর রশিদ তালুকদার ইকবাল বলেন, আমি সব সময়ই জনগণের সঙ্গে ছিলাম। দীর্ঘদিন ধরে এলাকার মানুষের প্রয়োজনে নিজেকে ব্যস্ত রেখেছি। এখনও ভোটারদের বাড়ি বাড়ি যাচ্ছি। বর্তমান সরকারের আমলে শায়েস্তাগঞ্জে ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। আমি নির্বাচিত হলে এ উন্নয়ন কাজকে তরান্বিত করতে কাজ করে যাব।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here